Home » news » কবর খুঁড়ে স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন তেল ঢালল স্বামী, দেশলাই ধরাতেই…

কবর খুঁড়ে স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন তেল ঢালল স্বামী, দেশলাই ধরাতেই…

মাটির মেঝে খুঁড়ে নিজের স্ত্রীর জন্য কবর খুঁড়েছিলেন৷ এমনকী স্ত্রীর জীবিত অবস্থাতেই মাথা মুড়িয়ে শ্রাদ্ধ করে নিয়েছেন তিনি৷ অভিযোগ গত রবিবার থেকেই স্ত্রী জ্যোৎস্না দেবীকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছিল উৎপল মোদক। পাকা ঘর হলেও মাটির মেঝে খুঁড়ে স্ত্রীর জন্য কবরও তৈরি করে রেখেছেন কদিন আগেই।

এসব দেখে দুই ছেলে বাবাকে বিরত করার চেষ্টা করলে তাদেরও প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় সে। গত দুদিন আগে নিজের মাথা মুড়িয়ে এসে বলেন তিনি স্ত্রী জ্যোৎস্নার শ্রাদ্ধ করে ফেলেছেন।

এরপর রেশন থেকে জ্যোৎস্নাদেবীর নিয়ে আসা কেরোসিন তেলের জার থেকে কেরোসিন তেল স্ত্রীর গায়ে ঢালতে থাকেন তাকে পুড়িয়ে মেরে ঘরের মেঝেতে খোঁড়া কবর দেবেন বলে। কেরোসিনের তীব্র গন্ধে পাশের বাড়ি থেকে ছুটে আসেন জ্যোৎস্নাদেবীর জা। দেশলাইয়ের কাঠি জ্বালানোর আগেই তিনি জ্যোৎস্নাদেবীকে উৎপলের হাত থেকে ছিনিয়ে নিয়ে বাঁচান। এমনই ভয়াবহ ঘটনার সাক্ষী থাকল উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ শহরের মিলনপাড়ার বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন : টাকার জন্য পরিচালকদের সামনে নগ্ন হয়েছে যেসকল অভিনেত্রীরা

অভিযুক্ত স্বামী উৎপল মোদককে গ্রেফতার করেছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। ভয়াবহ এই ঘটনার শিকার হতে যাওয়া স্ত্রী জ্যোৎস্না মোদক এখনও আতঙ্কগ্রস্ত। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জ্যোৎস্না দেবী ও তার সন্তানদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন এলাকার কাউন্সিলর পুষ্পা মজুমদার।

পারিবারিক সূত্রে জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জ পৌর এলাকার ৭ নং ওয়ার্ড মিলনপাড়ার বাসিন্দা পেশায় কাঠমিস্ত্রী উৎপল মোদক প্রায় প্রতিদিনই মদ্যপ অবস্থায় এসে স্ত্রী জ্যোৎস্নাদেবীকে মেরে ফেলার হুমকি দিতেন৷ মদ্যপ অবস্থায় বাড়িতে প্রতিদিনই অশান্তি ঝামেলা করত উৎপল। এই ঘটনায় তিতিবিরক্ত ছিলেন পাড়া প্রতিবেশীও। উৎপলের স্ত্রী জ্যোৎস্না দেবী পরিচারিকার কাজ করেন। তাদের দুই পুত্র সন্তানই শহরের একটি নামী স্কুলের পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে নির্যাতিতা স্ত্রী জ্যোৎস্না মোদক জানিয়েছেন, প্রতিদিনই মদ্যপ অবস্থায় এসে চরম অশান্তি করত তার স্বামী উৎপল মোদক। কদিন ধরেই তাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছিল। এমনকি মেরে কবর দেওয়ার জন্য ঘরের মেঝেতে পাঁচ ফিটের গর্তও খুঁড়ে রেখেছিল তার স্বামী। শুধু তাই জীবিত অবস্থায় তাঁর শ্রাদ্ধও করে ফেলেছিলেন৷

আরও পড়ুন : এবার ছেলে মেয়ে পালিয়ে বিয়ে করলে বাবা-মাকে গেপ্তার করবে পুলিশ রায় দিলো সুপ্রিম কোর্ট

উৎপল ও জ্যোৎস্নার বড় ছেলে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্র যীশু মোদক জানিয়েছে, তার বাবা, মায়ের উপর চরম অত্যাচার করত। কবর খুঁড়তে বাধা দিতে গেলে তাকেও মেরে ফেলার হুমকি দেয় বাবা উৎপল। তারপরেই এই চরম ঘটনা ঘটতে যাচ্ছিল৷ পরে খবর দেওয়া হয় রায়গঞ্জ থানায়। রায়গঞ্জ থানার পুলিশ এসে গ্রেফতার করে উৎপল মোদককে।

শুক্রবারই তাঁকে আদালতে তোলা হয়েছিল। বিচারক তাকে ১০ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। এদিকে এলাকার তৃণমূল কাউন্সিলর পুষ্পা মজুমদার জানিয়েছেন, কোনও কাজকর্ম পাচ্ছিল না দেখে উৎপলকে কাঠের কাজের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছিল। তাও সে শোধরায়নি। দোষীর কঠোর শাস্তির দাবিতে সরব হয়েছেন এলাকার তৃণমূল মহিলা সমিতি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*